দিনাজপুর সরকারি মহিলা কলেজের অফিসিয়াল অয়েবসাইটে সবাইকে স্বাগতম

 

Form পূরণ করার সময় Pin/Security Code  ইচ্ছে মতো দিলে হবে এবং Pin/Security Code অবশ্যই মনে রাখতে হবে।


অনলাইনে এখানে উল্লেখিত Admission Form বাটন হতে স্টুডেন্ট ভর্তি ফর্ম পূরণের পর তা ৪ কপি প্রিন্ট করে নিম্নে নির্দেশনাবলীতে উল্লেখিত কাগজপত্র সংযুক্ত করে কলেজে জমা দিতে হবে।
 
নির্দেশনাবলী
ভর্তির আবেদন ফরমের সাথে নিম্নলিখিত কাগজপত্র জমা দিতে হবেঃ
 ১।  এস.এস.সি পাসের নম্বরপত্রের মূল কপি এবং নম্বরপত্র , প্রশংসা পত্র ও রেজিস্ট্রেশন কার্ডের সত্যায়িত ফটোকপি প্রতিটির ২(দুই) কপি  
 ২। পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি ০৫ ( পাঁচ ) কপি এবং স্ট্যাম্প সাইজের ছবি-০২ কপি ।
 ৩। শিক্ষার্থীর জন্ম সনদের ( ১৭ ডিজিটের অনলাইন কপির ) সত্যায়িত ফটোকপি- ০১ কপি ।
 ৪। পিতা মাতা/অভিভাবকের  জাতীয় পরিচয় পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি -০১ কপি করে।
 ৫।  কোটায় ভর্তির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কোটার সনদ ও মুক্তিযোদ্ধা কোটার ক্ষেত্রে ওয়ারিশন সার্টিফিকেটের ০২ কপি সত্যায়িত ফটোকপি।
 ৬।  শিক্ষা বিরতি থাকলে ১ম শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা কর্তৃক পাঠ বিরতি সনদপত্র ০১ কপি।
 ৭।  ১০" X ১২" সাইজের খামের উপর শিক্ষার্থীর নাম , বিভাগ, ঠিকানা, ৪র্থ বিষয়, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের মোবাইল নাম্বার লিখতে হবে।

 


বেসরকারি কলেজ হিসাবে প্রতিষ্ঠাঃ ০১ জুলাই, ১৯৬৬।
সরকারিকরণঃ ০৭ মে, ১৯৭৯।
মোট ছাত্রীর সংখ্যাঃ প্রায় ৫০০০ জন।

প্রতিষ্ঠানের সংক্ষিপ্ত বর্ণনা

দিনাজপুর সরকারি মহিলা কলেজ বৃহত্তর দিনাজপুর এর সর্ববৃহৎ নারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। দিনাজপুর শহরের প্রাণকেন্দ্র দক্ষিণ বালুবাড়ী এলাকায় কলেজটি অবস্থিত। কলেজটি ১৯৭৯ সালে সরকারিকরণ করা হয়। কলেজটিতে বর্তমানে এইচ.এস.সি, ডিগ্রি পাস এবং ৬ (ছয়)টি বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু আছে। কলেজটির শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ৫০০০ জন।

অত্র কলেজ দিনাজপুর শহরের প্রাণ কেন্দ্রে দক্ষিন বালুবাড়ীর নিমনগর মৌজায় অবস্থিত। ১৯৫৩ সালে এস এন কলেজের নামে রেজিষ্ট্রিকৃত ১১.৬৫ একর ভূমি যা পরবর্তীতে বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা বিভাগের পক্ষে দিনাজপুর সরকারি মহিলা কলেজের নামে রেজিষ্ট্রকৃত হয়। কলেজের মোট জমি দুই খন্ডে বিভক্ত । খন্ডিত অংশের পরিমান ৪৪ শতাংশ। অন্য অংশের পরিমান ১১.২১। খন্ডিত অংশ কলেজের বিজ্ঞান ভবনের পূর্বাংশে অবস্থিত।

সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

১৯৪১ সালে কলকাতায় যখন ২য় বিশ্বযুদ্ধের ঢেউ আছড়ে পড়ে সে সময় রিপন কলেজের অধ্যক্ষ রবীন্দ্র নারায়ন ঘোষ দিনাজপুর এসে রিপন কলেজের দিনাজপুর শাখা খেলার প্রাথমিক পদক্ষেপ নেন। ১৯৪২ সালের ১লা জুলাই মহারাজা হাইস্কুলের একটি ভবনে রিপন কলেজ দিনাজপুর শাখা যাত্রা শুরম্ন করে। পরবর্তীতে ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের সময় কলেজের অধ্যক্ষ সহ শিক্ষকদের বড় অংশ কলকাতায় গমন করলে কলেজটিতে সংকট দেখা দেয়। এ সময় প্রখ্যাত দার্শনিক গোবিন্দ চন্দ্র দেব অধ্যক্ষ দায়িত্ব গ্রহণ করলে যাত্রা শুরম্ন হয় ঐতিহাসিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সুরেন্দ্রনাথ কলেজের। ১৯৫৪ সালে সুরেন্দ্রনাথ কলেজ তার নিজস্ব ভবন বালুবাড়ী মৌজায় স্থানামত্মরিত হয়। ১৯৫৬ সালে সোহরাওয়ার্দী মন্ত্রীসভার আমলে কলেজটি জাতীয়করনের উদ্যোগ গৃহীত হয়। এসময় তৎকালীন জেলা প্রশাসক মহোদয় কলেজ পরিচালনা পরিষদ, জেলা পরিষদ ও ইউনিয়ন কাউন্সিলের প্রেসিডেন্টদের মতামত গ্রহণ করে কলেজের নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় দিনাজপুর সরকারি কলেজ। ১৯৬৬ সালে কলেজটি সুইহারী মৌজায় স্থানামত্মরিত হলে পুরাতন ক্যাম্পাসের ভাগ্য নিয়ে সংকট দেখা দেয়। এমন সংকটকালে নারীদের জন্য কলেজ স্থাপনের দাবী উঠে জোরালোভাবে। তৎকালীন জেলা প্রশাসক এ.আর. চৌধুরী স্কয়ার ও তাঁর পত্নী সুলতানা চৌধূরীর দক্ষতা এবং সর্বসত্মরের দিনাজপুরবাসীর ঐকামিত্মক সহযোগীতায় যাত্রা শুরম্ন হয় দিনাজপুর সরকারি মহিলা কলেজের। মিসেস মাজেদা বেগম ছিলেন সেই সময়ের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ। কিন্তু ১৯৭১সালের মুক্তিযুদ্ধে পাক বাহিনী কলেজের ভিতরে আর্মি ক্যাম্প গড়ে তুললে নতুন করে সংকটে পড়ে যায় কলেজটি। স্বাধীনতা উত্তরকালে নতুন করে চালু হয় কলেজটি। ১৯৭৯সালে অধ্যক্ষ আতিউর রহমানের প্রচেষ্ঠায় কলেজটির জাতীয়করণ ঘটে। তখন থেকে এর নাম হয় দিনাজপুর সরকারি মহিলা কলেজ। কলেজটি সরকারিকরণ হলে অধ্যক্ষের দায়িত্ব নেন মিসেস ওমেদা বেগম।

কলেজ ক্যালেন্ডার

ফেব্রুয়ারী ২০২৪
সোমমঙ্গলবুধবৃহ:শুক্রশনিরবি
 
 
 
১০
১১
১২
১৩
১৪
১৫
১৬
১৭
১৮
১৯
২০
২১
২২
২৩
২৪
২৫
২৬
২৭
২৮
২৯